উঠে গেল অভ্যন্তরীণ বিমানভাড়ায় নিয়ন্ত্রণ, যাত্রীরা কি লাভবান হলেন

উৎসবের মরশুম তো সমাগত। মাঝে আর মাসখানেকও নেই। শুরু হয়ে যাবে উৎসব — শারদীয়া দুর্গাপূজা-নবরাত্রি, কালীপূজা-দীপাবলি নিয়ে পুরো অক্টোবর মাস জুড়ে মেতে থাকবে গোটা দেশ। পুজো মানে ছুটিরও মরশুম। ইচ্ছে করবে ঘর ছেড়ে একটু বেরিয়ে পড়ার। যাঁরা আগাম পরিকল্পনা করতে পারেননি, তাঁরা দূরে যেতে চাইলে ভরসা করতে হবে বিমানের উপর। কারণ এত কম সময়ে ট্রেনে সংরক্ষিত আসন পাওয়া যাবে না বলেই ধরে নেওয়া যায়। কিন্তু বিমানভাড়া নিয়ে কেন্দ্র অতি সম্প্রতি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেই সিদ্ধান্ত আপনার আনন্দের কারণ হতে পারে, আবার চাপেরও কারণ হতে পারে।

দেশের অভ্যন্তরীণ উড়ানে ভাড়ার উপর কেন্দ্র যে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছিল, তা গত ৩১ আগস্ট থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশ জারি করেছে কেন্দ্রের অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রক। সমগ্র দেশ যখন কোভিডে আক্রান্ত হয়, তখন এই নিয়ন্ত্রণ জারি করা হয়েছিল। গত ২৭ মাস ধরে এই নিয়ন্ত্রণ চলছিল।

অভ্যন্তরীণ উড়ানে ভাড়ার ক্ষেত্রে কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ উঠে যাওয়ার ফলে এখন থেকে বিমানসংস্থাগুলি তাদের নিজেদের ইচ্ছামতো ভাড়া চালু করতে পারবে। আগস্টের গোড়ায় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রক জানিয়েছিল, এয়ার টারবাইন ফুয়েল-এর (এটিএফ, ATF, air tubine fuel) প্রাত্যাহিক চাহিদা এবং দাম সতর্কতার সঙ্গে বিশ্লেষণ করার পরেই বিমানভাড়ায় নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হচ্ছে।

বিমানভাড়ায় নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করার পরে অসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া টুইট করে বলেন, স্থিতাবস্থা এসেছে। তাঁরা নিশ্চিত, অদূর ভবিষ্যতে অভ্যন্তরীণ উড়ানের ক্ষেত্রে বাড়বৃদ্ধি হবে।

যে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, এটিএফ-এর মূল্য লাফিয়ে লাফিয়ে সর্বোচ্চ চূড়ায় উঠে যাওয়ার পর আবার কমতে শুরু করেছে। ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই বিমান-জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছিল।

কেন ভাড়ায় নিয়ন্ত্রণ জারি হয়েছিল

কোভিডের প্রথম ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার পর ২০২০-এর ২৫ মে থেকে বিমান পরিষেবা ফের চালু হয়। তখন বিমানভাড়া নিয়ন্ত্রণে রাখার উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রক ভাড়ার সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন সীমা বেঁধে দেয়। এর ফলে সেই সময় বিমানসংস্থাগুলি সর্বোচ্চ ৪০ মিনিট উড়ানের ক্ষেত্রে ভাড়াবাবদ একজন যাত্রীর কাছ থেকে ৮৮০০ টাকার (জিএসটি ছাড়া) বেশি এবং ২৯০০ টাকার (জিএসটি ছাড়া) কম নিতে পারত না।  

বলা হয়েছিল, ভাড়ার সর্বোচ্চ সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল, লাগামহীন ভাড়া থেকে যাত্রীদের বাঁচানোর জন্য আর সর্বনিম্ন সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল আর্থিক ভাবে দুর্বল বিমান সংস্থাগুলিকে বাঁচানোর জন্য।

নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়ায় কি বিমানভাড়া বাড়বে

অসামরিক পরিবহন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এর ফলে বিমানভাড়া স্থিতিশীল হবে। এর ফলে এমনও হতে পারে, চাহিদা এবং বিমানের টিকিট বিক্রি বাড়ানোর জন্য বিমানসংস্থাগুলি ভাড়া কমিয়ে দিতে পারে বা নানা রকম অফার দিতে পারে। যার অর্থ হল কিছু কিছু সেক্টরে বিমানভাড়া কমবে এবং যে সেক্টরগুলি জনপ্রিয় সেখানে বাড়তে পারে।

এর ওপর আসন্ন উৎসবের মরশুমে বিমানের চাহিদা স্বাভাবিক ভাবেই বাড়বে। তখন বিমানভাড়া বাড়তে পারে।

আরও পড়তে পারেন

সুন্দরবনকে নিয়ে দশ দিনের দুর্গাপুজো প্যাকেজ, পর্যটনের প্রসারে একাধিক উদ্যোগ পশ্চিমবঙ্গের

ওনাম উৎসবে মেতে উঠেছে কেরল, চলবে ৮ তারিখ পর্যন্ত

পর্যটন দফতর-পুরসভার যৌথ উদ্যোগ, কলকাতাতেও এ বার হোমস্টে

ভ্রামণিকদের কাছে কেন অনন্য কেরল? রইল একাধিক কারণ

চোখধাঁধানো স্থাপত্যের প্রাসাদ: মাইসোর প্যালেস 

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.