১ জুন থেকে চালু হচ্ছে এনজেপি-ঢাকা মিতালি এক্সপ্রেস, ডলারের হিসেবে গুনতে হবে ভাড়া

শিলিগুড়ি: ট্রেনপথে যুক্ত হতে চলেছে ভারত ও বাংলাদেশের উত্তর ভাগ। এনজেপি থেকে ঢাকা পর্যন্ত নিয়মিত ট্রেন চলাচল শুরু হচ্ছে ১ জুন থেকে। নাম, মিতালি এক্সপ্রেস। কলকাতা ও ঢাকার মধ্যে চলে মৈত্রী এক্সপ্রেস, কলকাতা ও খুলনার মধ্যে চলে বন্ধন এক্সপ্রেস। এ বার এল মিতালী এক্সপ্রেস।

এনজেপি থেকে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট পর্যন্ত এই ট্রেনে যাতায়াতের ভাড়া ডলারের হিসাবে ধরা হয়েছে। ভারতীয় রেলের তরফে এই ঘোষণা করা হয়েছে। ডলারের বিনিময় হারে ভাড়ার হিসেব ধরা হবে। তবে টিকিটের দাম নেওয়া হবে ভারতীয় মুদ্রাতেই।

বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য এনজেপি স্টেশনে মুদ্রা বিনিময় কেন্দ্র থাকবে। ডলারের সঙ্গে ভারতীয় মুদ্রার বিনিময়-হারের ভিত্তিতে টিকিটের দাম নির্ধারিত হবে। এবং  প্রতি মাসেই এই ভাড়ার হার পালটাবে। কোন মাসে টিকিটের দাম কত হবে তা ঠিক হবে সংশ্লিষ্ট মাসের প্রথম দিন ডলারের সঙ্গে ভারতীয় মুদ্রার বিনিময়-হার কত থাকে তার ওপর।

মিতালি এক্সপ্রেস চালাবে ভারতীয় রেল। ট্রেনের রক্ষণাবেক্ষণের ভারও ভারতীয় রেলের উপরেই। সেই কারণে ভারতীয় রেলই ভাড়া নির্ধারণ করছে। এবং ভাড়া নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্কও। বিভিন্ন পর্যটন সংস্থার দাবি, ভাড়ার হার খানিকটা চড়া। এনজেপি থেকে ঢাকা যাওয়ার যা ভাড়া, ঢাকা থেকে এনজেপি আসার ভাড়া তার থেকে বেশি।

রেলের ঘোষণা অনুযায়ী, এনজেপি থেকে ঢাকা যেতে বাতানুকুল প্রথম শ্রেণির কামরার মূল ভাড়া (বেস ফেয়ার) ৩৩ ডলার, ভারতীয় মুদ্রার হিসেবে যা আড়াই হাজার টাকার উপর। অন্য দিকে, ঢাকা থেকে এনজেপি আসতে বাতানুকুল প্রথম শ্রেণির কামরার ভাড়া পড়বে ৪৪ ডলার, যা ভারতীয় মুদ্রার নিরিখে প্রায় সাড়ে তিন হাজার টাকা। বাতানুকুল চেয়ার কারে দু’ দিকে যাতায়াতের ভাড়া একই, ২২ ডলার, সতেরোশো টাকার কিছু বেশি। সব ক্ষেত্রেই ভাড়ার সঙ্গে ৫ শতাংশ জিএসটি জুড়বে।

তবে কেন এই দু’ রকম ভাড়া, তার ব্যাখ্যা অবশ্য রেল দিয়েছে। তারা বলেছে, ঢাকা থেকে রাত ৯টা ৫০ মিনিটে ট্রেন ছাড়বে। এনজেপি পৌঁছোবে পরদিন ভোরে। বাতানকুল প্রথম শ্রেণির কামরায় রাতের ট্রেনে যাত্রীদের শোয়ার ব্যবস্থা থাকবে। সেই কারণেই এই শ্রেণিতে ভাড়া বেশি রাখা হয়েছে। মিতালি এক্সপ্রেসের বাতানুকূল প্রথম শ্রেণি এবং বাতানুকূল চেয়ারকার ছাড়া অন্য কোনো কামরা নেই। দুই ধরনের চারটি করে কামরা থাকবে।

ভাড়ায় কিছুটা ছাড় দেওয়ার জন্য অনেকেই আবেদন করেছেন। তাঁদের বক্তব্য,  কলকাতা-ঢাকা যে মৈত্রী এক্সপ্রেস চলাচল করে, তার থেকেও ভাড়া বেশি মিতালি এক্সপ্রেসের। রেলের এক আধিকারিকের কথায়, “মিতালি এক্সপ্রেস কিছু দিন চলুক। কেমন যাত্রী হচ্ছে তা দেখে পরে ভাড়ার পর্যালোচনা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল মন্ত্রক।”

আরও পড়তে পারেন

প্রথম ভারত গৌরব ট্যুরিস্ট ট্রেন চালু হচ্ছে ২১ জুন, যাবে নেপালের জনকপুরেও

আর হেঁটে চড়াই ভাঙা নয়, কাদ্দুখাল থেকে রোপওয়েতে চলুন সুরখণ্ডা দেবী দর্শনে

ট্রেকিং-এর নতুন গন্তব্য: মুন্নারের কাছে মিসাপুলিমালা

সেলফি নেওয়া, ছবি তোলা, ভিডিও করা মানা গঙ্গাসাগরে কপিলমুনি মন্দিরে

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.