ভ্রমণের খবর

উত্তরবঙ্গের পর্যটকদের জন্য সুখবর, বিশেষ প্যাকেজে গ্যাংটক নিয়ে যাচ্ছে এনবিএসটিসি

nbstc jalpaiguri gangtok

রাজা বন্দ্যোপাধ্যায়, জলপাইগুড়ি: পর্যটকদের জন্য বিশেষ উদ্যোগ নিল উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগম (এনবিএসটিসি)। জলপাইগুড়ি থেকে সিকিমের রাজধানী গ্যাংটকে পর্যটকদের ঘুরিয়ে আনার পরিকল্পনা করছে তারা। ইতিমধ্যে জলপাইগুড়ি থেকে সাতটি জায়গায় বাসে করে পর্যটকদের ঘুরিয়ে আনছে নিগম। গ্যাংটকে ঘোরানোর ব্যবস্থা চালু হলে এনবিএসটিসির জলপাইগুড়ি ডিপোর মুকুটে নতুন পালক যোগ হবে।

নিগমের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সুবল রায় বলেন, “জলপাইগুড়ি থেকে পর্যটকদের গ্যাংটকে ঘোরানোর জন্য একটি পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আন্ত:রাজ্য পরিবহণের কিছু সমস্যা আছে। সেগুলি মিটে গেলেই পর্যটকরা জলপাইগুড়ি থেকে গ্যাংটকে ঘুরতে যেতে পারবেন।”

এনবিএসটিসি সুত্রে জানা গিয়েছে যে দু’রাত-তিন দিনের একটি প্যাকেজে এই গ্যাংটক সফরের পরিকল্পনা করছে নিগম। থাকা, খাওয়া-সহ এই সফরে মোট খরচ ধার্য হয়েছে জনপ্রতি ৬ হাজার ৫০০ টাকা। গ্যাংটক থেকে এক দিন নিয়ে যাওয়া হবে ছাঙ্গু লেকে। অন্য দিনটিতে গ্যাংটকের সাতটি পয়েন্ট ঘুরিয়ে দেখানো হবে। ২৬ আসনের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসে পর্যটকদের নিয়ে যাওয়া হবে। এনবিএসটিসির কোচবিহার ডিপোর এক আধিকারিক বলেন, “পর্যটকরা টিকিট কেটে বাসে ওঠার পর তাঁদের আর কোনো খরচ নেই। তাঁরা বাসে করে নিশ্চিন্ত মনে গ্যাংটকে যাবেন। আবার জলপাইগুড়িতে ফিরে আসবেন। থাকা-খাওয়া সমেত ছাঙ্গু লেকে যাওয়ার এবং গ্যাংটকে ঘোরার ব্যবস্থা আমরাই করব।”

জলপাইগুড়ির বাসটি গ্যাংটকের কোথায় থাকবে সেটাও একটা বিষয়। এনবিএসটিসি কর্তৃপক্ষের ইচ্ছে বাসটি গ্যাংটকের এসএনটি (সিকিম ন্যাশনালাইজড ট্র্যান্সপোর্ট) কর্তৃপক্ষের ডিপোয় থাক। কারণ বাইরে রাখলে তুলনায় খরচ বেশি। সে বিষয়েও এসএনটি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

এনবিএসটিসির জলপাইগুড়ি ডিপো থেকে আপাতত সাতটি জায়গায় এই ধরনের পর্যটনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেগুলি হল

১) ঝালং, জলঢাকা এবং বিন্দু, একদিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ৮০০ টাকা।

২) লাভা, একদিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ৮০০ টাকা।

৩) মিরিক, একদিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ৮০০ টাকা।

৪) রাজাভাতখাওয়া/জয়ন্তী, একদিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ৮৫০ টাকা।

৫) লাভা, রিশপ অথবা লাভা ছাঙ্গে ফলস ভায়া–ডেলো, কালিম্পং, একরাত দুই দিনের সফর, খাওয়া সমেত জনপ্রতি খরচ ২২৫০ টাকা।

৬) জলদাপাড়া, জঙ্গল সাফারি, জয়গাঁ, ফুন্টসিলিং, এক রাত-দু’দিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ২৬০০ টাকা।

৭) রামসাই, মেদলা, গরুমারা সাফারি- একরাত-দু’দিনের সফর, জনপ্রতি খরচ খাওয়া সমেত ২৬০০ টাকা।

এই পর্যটনের দু’রকম ব্যবস্থা আছে। এক, বিভিন্ন সময়ে ছুটির দিন এনবিএসটিসি কর্তৃপক্ষ এই পর্যটনের ব্যবস্থা করেন। তার সাতদিন আগে মাইকে প্রচার করে দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রচারপত্রও বিলি করা হয়। পর্যটকরা আগে থেকে টিকিট কেটে রাখেন। নির্দিষ্ট সময়ে তাঁরা ডিপোয় এসে বাসে ওঠেন। দুই, পর্যটকরা দলবদ্ধভাবে যেতে চাইলে তাঁরাই দিন ঠিক করে এনবিএসটিসি কর্তৃপক্ষকে জানালে নিজেরাই সেই দিনের জন্য বাস রিজার্ভ করতে পারেন। এই পর্যটকদের একইভাবে ঘুরিয়ে আনা হয়। ভাড়া জনপ্রতি যা ঠিক করা আছে তাই লাগে। গ্যাংটকের ক্ষেত্রেও এই দুটি ব্যবস্থাই চালু থাকবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

You may also like