হরিয়ানার রখিগড়ি গ্রামে তৈরি হবে হরপ্পা সভ্যতা নিয়ে বিশ্বের সব থেকে বড়ো সংগ্রহশালা

নয়াদিল্লি: হরপ্পা সভ্যতা নিয়ে বিশ্বের সব থেকে বড়ো সংগ্রহশালা তৈরি হতে চলেছে হরিয়ানার রখিগড়ি গ্রামে। দিল্লি থেকে দেড়শো কিলোমিটার দূরে হিসার জেলায় অবস্থিত এই গ্রামটি সিন্ধু সভ্যতার অন্যতম কেন্দ্র ছিল।

বর্তমানে এই গ্রামে খননকার্য চালাচ্ছে ভারতের ভূতাত্বিক সর্বেক্ষণ (এএসআই)। সেই সঙ্গে সংগ্রহশালা তৈরিরও কাজ চলছে। গত রবিবার রখিগড়িতে গিয়ে গোটা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর। সুত্রের খবর, পাঁচ হাজার বছর আগে ব্যবহৃত সব প্রত্নবস্তু শোভা পাবে এই সংগ্রহশালায়।

খ্রিস্টপূর্ব ২৬০০ থেকে ১৯০০-এর মধ্যে রখিগড়ি গ্রামটি সিন্ধু সভ্যতার অন্যতম কেন্দ্র ছিল। কিন্তু সিন্ধু সভ্যতার অন্যান্য স্থলে ব্যাপক খননকার্য হলেও এই গ্রামে বিশেষ কোনো খননকার্য কখনোই হয়নি। এখনও পর্যন্ত গোটা গ্রামের মাত্র পাঁচ শতাংশ খোঁড়াখুঁড়ি করেছে এএসআই।

খননকার্যে কী কী প্রত্নবস্তু পাওয়া গেল তার একটি তালিকাও তৈরি করে রাখতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী খট্টর। পাশাপাশি তাঁর নির্দেশ, কোনো গ্রামবাসীর বাড়িতে যদি কোনো প্রত্নবস্তু পাওয়া যায়, তা হলে তারও তালিকা করতে হবে। আর সেই সঙ্গে সেই সব বাসিন্দার নামও যাতে সংগ্রহশালায় শোভা পায়, সেই দিকেও এএসআইকে নজর দেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

১৯৬৩ সালে প্রথম বার এই গ্রামে খননকার্য শুরু করে এএসআই। ১৯৯৮ পর্যন্ত ৫৬টি কংকাল উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে দু’টি মহিলার কংকাল প্রায় সাত হাজার বছরেরও বেশি পুরোনো ছিল। ওই কংকালের হাতে ছিল চুড়ি, তামার আয়না এবং অত্যন্ত মুল্যবান পাথরের জপমালা।

আরও পড়তে পারেন

ভগবানের আপন দেশে ৪/ সেই আরুকুট্টি হারিয়ে গিয়েছে

ভগবানের আপন দেশে ৩/ আরুরের ‘চিনাভালা’য়

ভগবানের আপন দেশে ২/ কোচি ছুঁয়ে এলাম আরুরে

ভগবানের আপন দেশে ১/ আথিরাপ্পিল্লি দেখে কোচির পথে

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.