হোটেলে ঠাঁই নেই, বরফ উপভোগ করতে গুলমার্গ, পহলগামে পর্যটকদের ভিড়

ভ্রমণঅনলাইন ডেস্ক: করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও এই শীতে গুলমার্গ আর পহলগামের মতো কাশ্মীরের ট্যুরিস্ট স্পটগুলোতে পর্যটকের কোনো কমতি নেই। দলে দলে আসছেন তাঁরা। মূলত ভরা শীতে তুষারপাতের আকর্ষণেই ছুটে আসছেন তাঁরা। আগামী বেশ কয়েকটা সপ্তাহ এ সব জায়গার হোটেল-রিসর্ট একেবারে ভরতি হয়ে রয়েছে।

সাধারণ হোটেল-হাটের মতো গুলমার্গের বিলাসবহুল ‘খাইবার রিসর্ট ও স্পা’-ও জানুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত পুরো বুকড্‌।

কাশ্মীর পর্যটনের উপ-অধিকর্তা ড. জাভেদ-উর-রহমান বলেন, “একটা গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টে যোগ দেওয়ার জন্য আমাদের পর্যটন উপদেষ্টা ৩১ ডিসেম্বর এখানে আসছেন। তাঁর থাকার জন্য একটা ঘরের খোঁজে আমি আমার অফিস আর খাইবারের মধ্যে ছোটাছুটি করে বেড়ালাম। কিন্তু কাজের কাজ হল না। একটাও ঘর নেই। সব আগাম সংরক্ষণ হয়ে গিয়েছে।”

ড. জাভেদ-উর-রহমান জানান, গুলমার্গে এখন রোজ ৭০০-৮০০ পর্যটক আসছেন। এঁদের মধ্যে ২০০-৩০০ ভারতের বিভিন্ন জায়গা থেকে আর বাকি শ’ পাঁচেক স্থানীয়। স্থানীয়রা অনেকেই সারা দিন ঘোরাঘুরি করে চলে যাচ্ছেন।

অতি সম্প্রতি যে তুষারপাত হয়েছে, তার টানে এখানে পর্যটক আসার সংখ্যা অনেক বেড়ে গিয়েছে। তাঁরা স্কিয়িং করতে চান কিংবা বিখ্যাত রোপওয়ে ‘গুলমার্গ গন্ডোলা’য় জয়রাইড করতে চান।

এখন যে হেতু নীচের দিকে স্কিয়িং খুব একটা হচ্ছে না, তাই ‘গুলমার্গ গন্ডোলা’ রোপওয়ের প্রথম অংশটি খুব সম্প্রতি চালু করেছে দ্য জম্মু-কাশ্মীর কেবল কার কর্পোরেশন। সাধারণ ও অপেশাদার স্কিয়াররা ভিড় করছেন গুলমার্গে।    

‘গুলমার্গ গন্ডোলা’

তিনটি অংশে ভাগ করে ‘গুলমার্গ গন্ডোলা’ প্রকল্পের কাজ চলছে। প্রথম অংশটি হল গুলমার্গ রিসর্ট থেকে কংডোরি স্টেশন (২৬০০ মিটার, ৮৫৩০ ফুট)। গামলা আকারের কংডোরি ভ্যালিতে কংডোরি স্টেশন। এটা পৌঁছোতে ৯ মিনিট সময় লাগে। এই অংশটিই চালু করা হয়েছে।

দ্বিতীয় অংশটি হল কংডোরি স্টেশন থেকে কংডোরি পর্বত (৩৭৪৭ মিটার, ১২২৯৩ ফুট)। অফরওয়াত শৃঙ্গের কাঁধ। এখানে যেতে লাগে ১২ মিনিট।

তৃতীয় অংশটিতে রয়েছে ৯০টি চেয়ারলিফট্‌। এগুলি ২০১১ সালে বসানো হয়। ওই চেয়ারলিফটে চড়ে কংডোরি থেকে মেরি শোল্ডার যাওয়া যায়, যেখানে অনেক স্কিয়িং ইভেন্ট হয়। এখানে যেতে সময় লাগে ১১ মিনিট।

আরও পড়ুন: কলকাতা দর্শন: দেখে আসুন ট্রাম মিউজিয়াম ‘স্মরণিকা’

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *