কোভিড ১৯-এর নতুন স্ট্রেন: আন্তর্জাতিক যাত্রীদের জন্য নতুন নির্দেশিকা জারি করল স্বাস্থ্য মন্ত্রক

ভ্রমণঅনলাইন ডেস্ক: কোভিড ১৯-এর নতুন স্ট্রেন চিহ্নিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্রিটেন থেকে আসা যাত্রী ও অন্য আন্তর্জাতিক যাত্রীদের জন্য নতুন স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর (এসওপি) জারি করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। মঙ্গলবার ওই নির্দেশিকা জারি হয়।

ইতিমধ্যে ভারত-ব্রিটেন উড়ান চলাচল ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিষিদ্ধ করে দিয়েছে কেন্দ্র। সোমবার এই মর্মে ঘোষণা করা হয়েছে।

বি১১৭ (B117) নামে চিহ্নিত করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেন যাতে ছড়াতে না পারে তার জন্য আরও বহু দেশ ব্রিটেনের সঙ্গে বিমান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিসিজ কন্ট্রোল জানিয়েছে, নতুন স্ট্রেন ৭০% বেশি সংক্রামক।

স্বাস্থ্য মন্ত্রক যে এসওপি জারি করেছে, তাতে বলা হয়েছে, সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীকে তাঁদের গত ১৪ দিনের ভ্রমণ-ইতিহাস জানাতে হবে এবং কোভিড ১৯ পরীক্ষার জন্য একটা সেলফ-ডিক্লারেশন ফর্ম ভরতে হবে।

যাঁরা ব্রিটেন থেকে আসবেন, তাঁদের সম্পর্কে মন্ত্রকের নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, বিমানবন্দরে আগমনের সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের যাতে আরটি–পিসিআর (RT-PCR) পরীক্ষা করা হয় সেই ব্যাপারটা সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারকে সুনিশ্চিত করতে হবে। নমুনা যদি পজিটিভ হয়, তখন স্পাইক বেসড্‌ আরটি–পিসিআর পরীক্ষা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

যে সব যাত্রী পজিটিভ হবেন, তাঁদের সংশ্লিষ্ট রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে আলাদা প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থায় আইসোলেশনে রাখা হবে বলে মন্ত্রক জানিয়েছে।

আরটি–পিসিআর পরীক্ষায় যাঁরা নেগেটিভ হবেন, তাঁদের হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সাম্প্রতিকতম নির্দেশিকায় কী বলা হয়েছে

১। সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীকে তাঁদের গত ১৪ দিনের ভ্রমণ-ইতিহাস জানাতে হবে এবং একটা সেলফ-ডিক্লারেশন ফর্ম ভরতে হবে।

২। যে সব যাত্রী ২১ থেকে ২৩ ডিসেম্বরের মধ্যে মধ্যে ব্রিটেন থেকে ভারতে এসেছেন বা আসছেন তাঁদের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে আরটি–পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে।

৩। ওই সময়ে যাঁরা যাঁরা ফিরেছেন তাঁদের পুরো তালিকা তৈরি করতে সব রাজ্যকে বলা হয়েছে।

৪। যে সব যাত্রী পজিটিভ হবেন, তাঁদের সংশ্লিষ্ট রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে আলাদা প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থায় রাখা হবে।

৫। তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে জেনোমিক সিকোয়েন্সিং-এর জন্য পাঠানো হবে।

৬। যাঁদের দেখা যাবে চালু কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত, তাঁদের ক্ষেত্রে চলতি চিকিৎসাবিধি চলবে।

৭। তাঁদের রোগের তীব্রতা দেখে ঠিক করা তাঁরা হোম আইসোলেশনে থাকবেন না কি তাঁদের আলাদা ব্যবস্থায় রেখে চিকিৎসা করা হবে।

৮। যদি দেখা যায়, কেউ কোভিড ১৯-এর নতুন স্ট্রেনে আক্রান্ত, তাঁরা আলাদা আইসোলেশন ইউনিটে থাকবেন।

৯। যাঁরা বিদেশ থেকে এসে দেশে ফিরবেন বা দেশের বিমানবন্দর দিয়ে ট্রানজিট করবেন, তাঁদের যাতে আগমনের সঙ্গে সঙ্গে আরটি–পিসিআর পরীক্ষা করা হয় সেই ব্যাপারটা সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারকে সুনিশ্চিত করতে হবে।

১০। যে সব যাত্রী ২৫ নভেম্বরের পর ব্রিটেন থেকে ভারতে এসেছেন তাঁদের সঙ্গে ডিস্ট্রিক্ট সারভেইল্যান্স অফিসার যোগাযোগ করবেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেবেন।

আরও পড়ুন: হোটেলে ঠাঁই নেই, বরফ উপভোগ করতে গুলমার্গ, পহলগামে পর্যটকদের ভিড়

মন্তব্য করুন