টিকার পুরো ডোজ নেওয়া থাকলে ভ্রমণে আরটি-পিসিআর রিপোর্ট নয়, কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রকের চিঠি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে

ভ্রমণঅনলাইন ডেস্ক: যে সব পর্যটকের টিকার দু’টো ডোজ নেওয়া আছে, তাঁদের যেন কোনো রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে প্রবেশে বাধা দেওয়া না হয়। কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রকের তরফে সব ক’টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে এই মর্মে অনুরোধ করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ ঝঞ্ঝাটমুক্ত করার জন্য কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রক এই উদ্যোগ নিয়েছে।

এখনও দেশের বহু জায়গায় যাওয়ার জন্য টিকার দু’টো ডোজের সার্টিফিকেটের পাশাপাশি আরটি-পিসিআর নেগেটিভ রিপোর্ট সঙ্গে রাখতে হয়। বেশ কিছু রাজ্যে প্রবেশের মুখে দু’ ধরনের সার্টিফিকেটই দেখাতে হচ্ছে। এর ফলে পর্যটন শিল্প মারাত্মক ভাবে মার খাচ্ছে। ভ্রমণের এই প্রতিবন্ধকতা দূর করতেই সচেষ্ট হয়েছে কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রক। এই নিয়ে তারা দ্বিতীয় বার চিঠি পাঠাল রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে।

মন্ত্রক বলেছে, যাঁদের পুরো টিকাকরণ হয়ে গিয়েছে, তাঁরা বৈধ সার্টিফিকেট দেখিয়ে যাতে অবাধে নিজেদের গন্তব্যে যেতে পারেন তা সুনিশ্চিত করতে হবে।

সর্বশেষ রিপোর্টে জানা গিয়েছে, সব ক’টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের পর্যটন সচিবদের কাছে কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রকের পক্ষ থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, যে সব ভ্রমণার্থীর পুরো টিকাকরণ হয়ে গিয়েছে তাঁদের ভ্রমণ বাধামুক্ত করতে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন অঞ্চলে পর্যটন ক্রিয়াকলাপ শুরু করতে আস্থাবর্ধক ব্যবস্থা নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। দেশের ৫০ কোটি মানুষের টিকাকরণের লক্ষ্যমাত্রা সম্পূর্ণ হয়েছে। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের ভ্রমণ কী ভাবে অবাধ করা যায় তা নিয়ে দেশের সব ক’টি অঞ্চলের ভাবনাচিন্তা করা উচিত।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে পরিষ্কার বলে দেওয়া হয়েছে, দেশে অতিমারি চলাকালীন কোনো সময়েই আরটি-পিসিআর নেগেটিভ রিপোর্টকে দেশভ্রমণের ছাড়পত্র হিসাবে ব্যবহার করার জন্য কখনোই কোনো নির্দেশ মন্ত্রক থেকে জারি করা হয়নি।

আরও পড়ুন: হয় দু’টি ডোজের শংসাপত্র, না হয় আরটিপিসিআর নেগেটিভ রিপোর্ট, পর্যটকদের জন্য ফের বিধি জারি হিমাচলে

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.