করোনা-পরবর্তী পরিস্থিতিতে পর্যটন-পরিকল্পনা করতে হবে কেন্দ্র ও রাজ্যগুলিকে, বললেন প্রধানমন্ত্রী

ভ্রমণ অনলাইন ডেস্ক: করোনা-পরবর্তী পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতিকে চাগিয়ে তুলতে পর্যটন একটা বড়ো ভূমিকা পালন করতে পারে। এমনটাই মনে করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গত সোমবার বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও সম্মেলনের সময় উপস্থিত সকলকে এ কথাই মনে করিয়ে দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইউরোপের গুরুত্বপূর্ণ পর্যটনকেন্দ্রগুলি কোভিড-১৯ অতিমারির মারাত্মক আঘাত সহ্য করছে। আগামী কয়েক বছরে তাই বিদেশি পর্যটকদের ভারতে টেনে আনার সুযোগ রয়েছে। এর উপর দেশীয় পর্যটকদের নিয়ে বিশাল সম্ভাবনা তো রয়েইছে।

মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও সম্মেলনের বিস্তারিত জানার অধিকার যাঁদের ছিল, তাঁদের সূত্রে এই খবর জানা গিয়েছে। ওই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পর্যটন ক্ষেত্রে ভারতের বহু সুযোগ রয়েছে। তাই করোনা-পরবর্তী পরিস্থিতিতে পর্যটনের ছবিটা ঠিক কেমন হবে তা নিয়ে কেন্দ্র এবং রাজ্যগুলিকে গভীর ভাবে চিন্তাভাবনা করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অভ্যন্তরীণ পর্যটনের যে বিন্যাস ভারতে রয়েছে, আগামী দিনগুলিতে তা পরীক্ষা করে দেখতে হবে। তিনি মনে করেন, অভ্যন্তরীণ পর্যটন একটা গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র যা করোনা-পরবর্তী পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতিতে বড়ো ভূমিকা পালন করতে পারে।

আরও পড়ুন: পর্যটনশিল্প পুনরুজ্জীবনের নতুন নীতিনির্দেশ কয়েক দিনের মধ্যেই

করোনা-পরবর্তী বিশ্বের প্রয়োজনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের দেশের হোটেল পরিকাঠামো ও অন্যান্য পর্যটক-পরিষেবায় নতুন নিয়মবিধি চালু করতে রাজ্যগুলির কাজ শুরু করে দেওয়া উচিত বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী এবং এ কথাই তিনি মুখ্যমন্ত্রীদের বলেন।

সম্মেলনের পরে বৈঠকে যোগদানকারী এক মুখ্যমন্ত্রীর অফিসের এক সিনিয়ার আধিকারিক ইকোনমিক টাইমসকে বলেন, করোনাভাইরাস যে ভাবে ছড়িয়েছে তাতে আগামী মাসগুলিতে আন্তর্জাতিক পর্যটকরা ইতালি, ফ্রান্স, স্পেন, ব্রিটিশ যুক্তরাজ্যের পর্যটনস্থলগুলিতে খুব একটা পা মাড়াবেন না, যদিও হয়তো এই দেশগুলো তাদের পর্যটনকেন্দ্রগুলি খুব তাড়াতাড়িই খুলে দেবে। ভারত তুলনায় কম করোনা-আক্রান্ত এবং রোগটা কতগুলো নির্দিষ্ট জায়গায় সীমাবদ্ধ বলে আন্তর্জাতিক পর্যটকরা হয়তো আমাদের দেশকেই বেছে  নেবেন। আর ঘরের যে সব পর্যটক বাইরে ছুটি কাটাতে যান, তাঁরাও দেশীয় গন্তব্যই পচ্ছন্দ করবেন।

উত্তরাখণ্ড চায়

রাজ্যের গ্রিন জোন অঞ্চল পর্যটকদের জন্য খুলে দিতে চায় উত্তরাখণ্ড। তার জন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি চেয়েছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও সম্মেলনে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিংহ রাওয়াত সীমিত ভাবে পর্যটনের কাজকারবার আবার শুরু করার অনুমতি চান।উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসে খুবই কম আক্রান্ত হয়েছে উত্তরাখণ্ড এবং যেটুকু হয়েছে তার সবটাই পাহাড়ি রাজ্যটির সমতল অংশে।

Leave a Reply