Categories
ভ্রমণের খবর

পর্যটকরা এ বার দিঘায় সমুদ্রস্নান করে জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দেবেন

ভ্রমণ অনলাইনডেস্ক: জগন্নাথ মন্দির এ বার দিঘাতেও। এই মন্দির হবে পুরীরই আদলে। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই পরিকল্পনার কথা বলেছেন। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে, ওল্ড দিঘায় দুই একর জমিতে এই মন্দির তৈরি হবে।

আরও পড়ুন শীঘ্রই রাতেও দর্শন করতে পারবেন তাজমহল

সম্প্রতি বিশ্ব বাংলা কনভেনশন সেন্টার উদ্বোধন করতে দিঘা যান মুখ্যমন্ত্রী।  উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দিঘায় জগন্নাথ মন্দির নির্মাণের কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।  তিনি বলেন, দিঘার  জগন্নাথ মন্দিরের মূর্তি পূরীর বড়ো হবে। তাঁর আশা, দিঘায় মন্দির তৈরি হয়ে গেলে পর্যটক আরও বাড়বে।  মুখ্যমন্ত্রী পর্যটকদের দিঘায় আসতে অনুরোধ করেন এবং বলেন, দিঘার সমুদ্র সৈকত আগের থেকে আরও সুন্দর করে সাজানো হয়েছে। এবং দিঘাকে একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার শপথ নিয়েছে তাঁর সরকার।

তিনি নিশ্চিত যে এই মন্দির উদ্বোধনের পর দিঘায় পর্যটকের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাবে। পর্যটকেরা চুটিয়ে সমুদ্রস্নান উপভোগ করে জগন্নাথ মন্দিরে পুজো দেবেন। এই মন্দির একটি আকর্ষণীয় দ্রষ্টব্য হিসেবে গড়ে উঠবে। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, দিঘায় এই মন্দির নির্মাণে খরচ হবে ২ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা।

মুখ্যমন্ত্রী জানান, দিঘা উপকূল ছাড়াও, তাজপুর, মন্দারমণি এবং শংকরপুর সৈকতকেও আরও সুন্দর ও আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। 

Categories
ইতিহাস/স্থাপত্য পশ্চিমবঙ্গ ভ্রমণের খবর

পর্যটনের প্রসারে পলাশি, মায়াপুর, নবদ্বীপ নিয়ে বিশেষ ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

নদিয়া: পলাশিতে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা এবং নবদ্বীপ, মায়াপুরকে হেরিটেজ সিটি হিসেবে ঘোষণা করা এখন রাজ্য সরকারের অন্যতম লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ব্যাপারে কাজ কতটা এগিয়েছে, নদিয়া জেলা সফরে এসেছে জেলাশাসক সুমিত গুপ্তের কাছে জানতে চাইলেন তিনি।

তবে জেলাশাসক জানিয়ে দিয়েছেন জমির কোনো সমস্যা নেই। এর পরেই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ, যত দ্রুত সম্ভব এই কাজ শেষ করতে হবে।

উল্লেখ্য, পলাশির যুদ্ধকে স্মরণ করে সেখানে একটি পর্যটন কেন্দ্র তৈরি করা হচ্ছে। সেই কাজ কিছুটা এগিয়ে গিয়েছে। অন্য দিকে গৌরাঙ্গের নবদ্বীপ এবং মায়াপুরে দেশবিদেশ থেকে প্রচুর পর্যটক আসেন। সে কারণেই হেরিটেজ সিটি হিসেবে গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

অন্য দিকে নদিয়া জেলার খেজুর গুড়কে কেন্দ্র করেও কিছু করা যায় কি না সেই দিকটাও দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মমতা। গুড়কে প্যাকেজিং করে বাইরে বিক্রি করার ব্যাপারটিও কেন্দ্রকে দেখতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। জেলার সমস্ত উন্নয়নের কাজ যাতে সঠিক ভাবে হয় এবং সেই সব কাজে সব স্তরের নেতা–কর্মী, এমনকি জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদ্যস্যরা যুক্ত হতে পারেন, সেই দিকটাও দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Categories
ভ্রমণের খবর

আসন্ন পর্যটন প্রকল্পগুলিকে নিয়ে রিপোর্ট তৈরি করল রাজ্য

ভ্রমণনলাইন ডেস্ক: রাজ্যে আসন্ন পর্যটন প্রকল্পগুলিকে নিয়ে তৈরি করা হয়েছে একটি রিপোর্ট। কিছু দিনের মধ্যেই সেই রিপোর্ট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেওয়া হবে বলে জানালেন পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব।

উত্তরবঙ্গ এবং দক্ষিবঙ্গে এই মুহূর্তে কী কী প্রকল্পের কাজ চলছে, সেইগুলিকে নিয়েই এই রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে গৌতমবাবু বলেন, “নতুন পর্যটনস্থল খুঁজে বের করার জন্য সম্প্রতি দক্ষিণবঙ্গে ছিলাম। একটা কথা বলতেই হয়। আমাদের পর্যটনের রসদ প্রচুর। আমাদের কাঞ্চনজঙ্ঘা রয়েছে, সুন্দরবন আছে, বঙ্গোপসাগর আছে। এই সব নিয়ে একটি রিপোর্ট মুখ্যমন্ত্রীর হাতে তুলে দেব। এ ছাড়াও নতুন কী প্রকল্প নেওয়া যায়, সেই নিয়েও আলোচনা করব।”

দার্জিলিং টুরিস্ট লজ, কালিম্পংয়ের হিলটপ এবং মর্গান হাউস টুরিস্ট লজ-সহ রাজ্যে ৩৪টি টুরিস্ট লজে সংস্কারের কাজ চলছে। গৌতমবাবু বলেন, “এই সংস্কারের জন্য ৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে।”

এ ছাড়াও নতুন কিছু পর্যটন আবাসও তৈরি হচ্ছে। টাইগার হিলে কয়েকটি কটেজ বিশিষ্ট একটি পর্যটক আবার তৈরি হচ্ছে। পাশাপাশি সান্দাকফু, ফালুট এবং টংলুতে ট্রেকার্স হাট তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, “রাজ্যে অন্তত একশোটা পর্যটন আবাস তৈরি হবে।”

গৌতমবাবুর কথায়, পুরুলিয়ায় ময়ুরেশ্বরি বাঁধ সংলগ্ন এলাকা এবং অযোধ্যা পাহাড়ে পর্যটনের প্রসারে নানারকম উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জঙ্গলমহল এবং ঝাড়গ্রামেও বেশ কয়েকটি পর্যটন প্রকল্পের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Categories
ভ্রমণের খবর

রাজ্যবাসীর জন্য সুখবর, মুখ্যমন্ত্রী চালু করলেন এসি ভলভো বাস পরিষেবা

কলকাতা: রাজ্যবাসীর জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপহার বাংলাশ্রী এক্সপ্রেস। বাংলাশ্রী এক্সপ্রেস হল এসি ভলভো বাস, ছুটবে কলকাতা থেকে জেলার সদর শহর পর্যন্ত। বিলাসবহুল বাসের সমস্ত সুবিধাই মিলছে এই বাসে। থাকছে আরামদায়ক আসন, বায়োটয়লেট ইত্যাদি।

বুধবার নবান্নর সামনে থেকে বাংলাশ্রী এক্সপ্রেস চালু করলেন মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং। রাজ্যের ২০টি জেলাসদরের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য আপাতত ২০টি বাস চালু হল। আরও ৬টি বাস চালানো হবে বলে মুখ্যমন্ত্রী জানান। একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী ২২টি এসি অ্যাম্বুল্যান্স ও ১৩টি রেকার ভ্যান চালু করেন।

bus service to dist headquartersজেলাসদরের সঙ্গে কলকাতার যোগাযোগের সুবিধার জন্যই শুধু নয়, এই বাস সার্ভিস রাজ্যে পর্যটন প্রসারেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ২০১৭-এর বন্যার সময় উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের যোগাযোগ প্রায় কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল। তখন বাস পরিষেবাই দু’টি অঞ্চলের যোগাযোগের একমাত্র সূত্র হয়ে উঠেছিল। তখন থেকেই আরও ভালো বাস পরিষেবা চালু করার ভাবনা তাঁর মাথায় আসে। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ভাবনাই কাজে রূপান্তর করল রাজ্য পরিবহণ দফতর।

নবান্নর সামনে আয়োজিত বাস পরিষেবা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, মুখ্যসচিব মলিয় দে, অতিরিক্ত মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ।

ছবি: রাজীব বসু

Categories
পরামর্শ

১৫ আগস্ট থেকে গোয়ায় ভুলেও এই কাণ্ডটা করবেন না!

পানজিম: নৈব নৈব চ। গোয়ায় গিয়ে এ বার থেকে ভুলেও এই কাণ্ডটা করবেন না। করলেই বিরাট অঙ্কের জরিমানার ফাঁদে পড়ে যাবেন। আনন্দটাই মাটি হবে।

সৈকতে তো বটেই, যে কোনো প্রকাশ্য স্থানে বসে মদ্যপান করলে গুণতে হবে মোটা অঙ্কের জরিমানা। আগামী ১৫ আগস্ট থেকে গোয়ায় সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় মদ্যপান সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা বলবৎ হবে। এ কথা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পর্রীকর।

গোয়ার ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন পরিচালিত একটি পক্ষী প্রজনন কেন্দ্রের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত এক সমাবেশে আরও এক গুচ্ছ নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানান, প্রকাশ্যে ধূমপান ও প্লাস্টিক ব্যবহার রুখতেও আগের আইন আরও কঠোর করা হচ্ছে। জায়গা নোংরা করলেও জরিমানা করা হবে।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, পানজিমে নদীর ধারে ফুটপাতে ঢালাও মদের আসর বসে। প্রকাশ্যে বিয়ার পান চলে। এ সব বন্ধ হওয়া দরকার। নাগরিক দায়িত্ববোধ বলে একটা জিনিস আছে। এই সব অভ্যাসে রাশ টানতেই মদ্যপানের ব্যাপারে কড়া হচ্ছে রাজ্য।

মদ্যপান সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা ভাঙলে কত জরিমানা হবে, তা অবশ্য এখনও ঠিক হয়নি। তবে প্লাস্টিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে জরিমানা ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৫০০ টাকা করা হচ্ছে। ধূমপানের জরিমানাও বাড়বে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।